২০শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং, বুধবার

‎পাবনার আদালতের রায় সরকারের নিষ্ঠুর দানবীয় রুপের নতুন চেহারা, বললেন -ফখরুল

আপডেট: জুলাই ৪, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

আপডেট নিউজ:বুধবার রাতে বিবৃতিতে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ২৪ বছর আগে ১৯৯৪ সালে পাবনার ঈশ্বরদীতে তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেতা শেখ হাসিনাকে বহনকারী ট্রেনে গুলি ও বোমা হামলা ছিল সম্পূর্ণরুপে বানোয়াট ও সাজানো। রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রে আওয়ামী লীগের জুড়ি মেলা ভার।
তিনি বলেন, পরিকল্পিতভাবে নিজ দলীয় লোকদের দিয়েই ট্রেনে গুলি ও বোমা হামলার ঘটনা ঘটিয়ে রাজনৈতিক ইস্যু সৃষ্টি করা হয়েছিল, যা সর্বজনবিদিত। সরকারের ক্রমপ্রসারমান ফাঁসির দড়ি বিরোধী নেতাকর্মীদের দিকে ধাবিত হচ্ছে। বিএনপিসহ বিরোধী দল, মত নিশ্চিহ্ন করণে নাৎসিবাদী আয়োজনের নগ্ন বহির্প্রকাশ সরকারের নির্দেশে পাবনার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের রায়।

তিনি বলেন, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ নেতাকর্মীদের ওপর অব্যাহত জুলুমের পরেও বিএনপিকে নিস্তেজ তো করা যায়ইনি, বরং জনসমর্থনের বিপুল বৃদ্ধিতে সরকারের হিতাহিত জ্ঞানশুন্য হয়েছে। কাণ্ডজ্ঞান লোপ পেয়ে এখন বিএনপি নেতাকর্মীদের বিভিন্ন কায়দায় দুনিয়া থেকে নির্মূলে সর্বশক্তি নিয়োগ করেছে।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, ‘২৪ বছর আগের ট্রেনে গুলি-বোমা হামলার সাজানো ঘটনায় আদালতের রায়ের মাধ্যমে একটি বিষয় সুষ্পষ্ট হয়ে উঠেছে যে, ভোগ-লালসায় অস্থির সরকার তাদের গদি টিকিয়ে রাখতে নানা ধরনের সর্বনাশা নীলনকশা প্রণয়ন করে রেখেছে। যতোই দিন যাচ্ছে, ততোই একের পর এক সরকারের হিংস্র রুপের প্রকাশ ঘটছে, মানবিক বিবেচনাগুলো পদদলিত করা হচ্ছে।’

‘বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দীর্ঘ ২৪ বছর পর এই রায় ঘোষণার ঘটনা শুধু হাস্যকরই নয়, এটি একটি সুদুরপ্রসারী মাষ্টারপ্ল্যানেরই অংশ।’

পাবনার ঈশ্বরদীতে ১৯৯৪ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও তৎকালীন বিরোধী দলের নেতা শেখ হাসিনার ট্রেনবহরে গুলিবর্ষণ ও হামলা মামলায় বুধবার ৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড ২৫ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন পাবনার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ রুস্তম আলীর আদালত। রায়ে ১৩ জন পেয়েছেন ১০ বছরের কারাদণ্ড। সাজাপ্রাপ্তরা সবাই বিএনপির নেতাকর্মী। এ মামলায় ৫২ আসামিদের মধ্যে মারা গেছেন ৫ ও পলাতক রয়েছেন ১৫ জন। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামির মধ্যে রয়েছেন- ঈশ্বরদী পৌরসভার সাবেক মেয়র বিএনপি নেতা মোখলেসুর রহমান, ইশ্বরদী পৌর বিএনপির সভাপতি জাকারিয়া পিন্টু, সাবেক সভাপতি আখতারুজ্জামান প্রমুখ।

অপর এক বিবৃতিতে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর রায় ঘোষণার পর পরই বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিবসহ নেতাকর্মীদের ওপর আওয়ামী যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীদের সশস্ত্র হামলার অভিযোগ তুলে এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
Website Design and Developed By Engineer BD Network