২০শে অক্টোবর, ২০১৯ ইং, রবিবার

শিশুর মুণ্ডু নিয়ে ঘুরে বেড়ানো এক যুবক গণপিটুনিতে নিহত

আপডেট: জুলাই ১৮, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

নেত্রকোনা শহরে ব্যাগে করে শিশুর মুণ্ডু নিয়ে ঘুরে বেড়ানো এক যুবক গণপিটুনিতে নিহত হয়েছেন। যুবকের নাম রবিন (২২)। সে উত্তর কাটলীর রিক্সাচালক আলকাছ মিয়ার পুত্র। নিহত শিশুর নাম সজিব (৮), সে কাটলী এলাকার রিক্সা চালক রইস উদ্দিনের ছেলে।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে বলে অাপডেট নিউজকে নিশ্চিত করেছেন নেত্রকোনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস এম আশরাফুল আলম।

স্থানীয়রা জানান, বারহাট্টা রোডে শ্রমিক ইউনিয়নের সামনে মেথর পট্টি। সেখানে মদ পান করে মাতলামি করার সময় ব্যাগ থেকে শিশুর গলাকাটা মস্তক (মুন্ডু) মাটিতে পড়ে যায়। এ সময় স্থানীয় জনতা তা দেখে ফেলে। মূহুর্তে খবরটি আশপাশে ছড়িয়ে পড়লে উত্তেজিত শত শত জনতা ওই যুবককে ধাওয়া করে। পরে নিউটাউন পঁচা পুকুর (অনন্ত পুকুর) পাড়ে সে গণপিটুনিতে নিহত হয়।

খবর পেয়ে পুলিশ পুকুর পাড় থেকে শিশুর গলা কাটা মস্তক ও নিহত যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার করে। পরে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়।

নেত্রকোনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস এম আশরাফুল আলম জানান, শিশু সজিবের মুন্ডুহীন দেহটি উত্তর কাটলীর একটি নির্মানাধীন তিন তলা বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। বাড়ির মালিক বারহাট্টা উপজেলার চিরাম গ্রামের কায়কোবাদ। কী কারণে শিশুটিকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

ফেসবুকে গলা কাটা শিশুর ছবি মূহুর্তে ভাইরাল হয়ে যায়। ছবি দেখে কাটলী এলাকার রিক্সা চালক রইস উদ্দিন থানায় গিয়ে জানায়, মুণ্ডুটি তার পুত্র সজিবের। তার বয়স ৮ বছর। বেলা ১১ টার দিকে সজিব তার কাছে আইসক্রীম খাবার জন্য ৫টি টাকা চায়। কিন্তু হাতে টাকা না থাকায় তিনি সে সময় সজিবকে আইসক্রীম খাওয়ার টাকা দিতে পারেনি।

চাঞ্চল্যকর এ খবর ছড়িয়ে পড়ায় নেত্রকোনাবায় চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
Website Design and Developed By Engineer BD Network