৪ঠা আগস্ট, ২০২০ ইং, মঙ্গলবার

শিরোনাম
মুলাদীতে পেয়ারা ব্যবসায়ী বজ্রপাতে নিহত রূপসা উন্নয়ন সংস্থার পক্ষ থেকে ফলজ বৃক্ষ রোপন সরকারী মুলাদী কলেজে বৃক্ষরোপন করেন ঢাকাস্থ মুলাদী সমিতি উজিরপুরে ফুটবল খেলায় দন্দের জের ধরে কিশোর গ্যাং এর হামলা, ব্যাবসায়ী আহত মুলাদী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জীবনের ঝুকি নিয়ে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন ডাক্তারগন উজিরপুর বাসীকে ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছে কবির হোসেন কাজিরচর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের উদ্যোগে মুলাদী উপজেলা চেয়ারম্যানের মায়ের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া মোনাজাত কুড়িগ্রাম জেলা যুবদলের কমটি নিয়ে বাণিজ্যের অভিযোগ ব্যাপক তোলপাড়ের সৃষ্টি মুলাদীতে দুই মাসের মধ্যে বয়াতী বাড়ীর রাস্তার ব্রীজের এপ্রোজ কালর্ভাট বিলিন

গৌরনদীতে শিক্ষার্থীদের মাঝে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া

আপডেট: জানুয়ারি ১৬, ২০২০

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল ॥ বরিশালের গৌরনদী উপজেলার চন্দ্রহার কে.আর শিক্ষায়তনের বাথরুম ভাংগার জেরধরে এসএসসি পরিক্ষার্থী ও দশম শ্রেণীর ছাত্রদের মাঝে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। খবরপেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন গৌরনদী মডেল থানা পুলিশ।
ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু বকর সিদ্দিক জানান, চন্দ্রহার কে.আর শিক্ষায়তনে ব্রাক ওয়াস কর্মসূচি ও স্কুলের যৌথ উদ্যোগে একটি বাথরুম নির্মান করা হয়। বাথরুমটি উদ্বোধনের আগেই এসএসসি পরিক্ষার্থীদের অনুরোধে শিক্ষার্থীদের ব্যবহার করতে দেয়া হয়। গত দুইদিন পূর্বে বাথরুমটি ক্ষতিগ্রস্ত করে এসএসসি পরিক্ষার্থী নাবিল আকন ও আব্দুর রহমান মৃধা। যা ষষ্ঠ ও সপ্তম শ্রেণীর কয়েকজন ছাত্র দেখে ফেলে। এবিষয়ে বুধবার (১৫ জানুয়ারী) সকালে কম্পিউটার শিক্ষক তোহা খান ও অফিস সহকারী আতাউর রহমান এসএসসি পরিক্ষার্থী নাবিল ও রহমান মৃধাকে জিজ্ঞেস করাতে তাদের উপর ক্ষীপ্ত হয় নাবিল ও রহমান। শিক্ষকদের উপর এসএসসি পরিক্ষার্থীদের ক্ষীপ্ত হওয়ায় প্রতিবাদ করে দশম শ্রেণীর ছাত্ররা। এরপর স্কুল ছুটি দেওয়ার পর দশম শ্রেণীর ছাত্র আশরাফুল ও শরিফুল নামের দুই শিক্ষার্থীকে মারধর করে এসএসসি পরিক্ষার্থীরা। এনিয়ে বৃহস্পতিবার বেলা এগারটায় স্কুলে জরুরি বৈঠক হওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু সকাল দশটায় পূনরায় এসএসসি পরিক্ষার্থীরা একত্রিত হয়ে স্কুল ক্যাম্পাসে ঢুকে পূনরায় কম্পিউটার শিক্ষক তোহা খান ও আতাউর রহমানের উপর চড়াও হয়। এঘটনার সূত্রধরে এসএসসি পরিক্ষার্থী ও দশম শ্রেণীর ছাত্রদের মাঝে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরে তাৎক্ষনিকভাবে অন্যান্য শিক্ষক ও স্থানীয়দের সহায়তায় ছাত্রদের নিবৃত করা হয়।
এবিষয়ে এসএসসি পরিক্ষার্থী নাবিল আকনের মা মঞ্জু বেগম জানান, তার পুত্র নাবিল নাবিল কোনভাবেই বাথরুম ভাংগার সাথে জড়িত নয় এবং পূর্ব থেকেই স্কুলের অফিস সহকারী আতাউর রহমান নাবিলকে সহ্য করতে পারতো না। শুধু মিথ্যে অভিযোগ এনে নাবিলকে মারধর করেছে শিক্ষকরা। এখন শিক্ষকদের দোষ ঢাকতেই নাবিলকে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
Website Design and Developed By Engineer BD Network