৪ঠা আগস্ট, ২০২০ ইং, মঙ্গলবার

শিরোনাম
মুলাদীতে পেয়ারা ব্যবসায়ী বজ্রপাতে নিহত রূপসা উন্নয়ন সংস্থার পক্ষ থেকে ফলজ বৃক্ষ রোপন সরকারী মুলাদী কলেজে বৃক্ষরোপন করেন ঢাকাস্থ মুলাদী সমিতি উজিরপুরে ফুটবল খেলায় দন্দের জের ধরে কিশোর গ্যাং এর হামলা, ব্যাবসায়ী আহত মুলাদী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জীবনের ঝুকি নিয়ে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন ডাক্তারগন উজিরপুর বাসীকে ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছে কবির হোসেন কাজিরচর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের উদ্যোগে মুলাদী উপজেলা চেয়ারম্যানের মায়ের রুহের মাগফিরাত কামনায় দোয়া মোনাজাত কুড়িগ্রাম জেলা যুবদলের কমটি নিয়ে বাণিজ্যের অভিযোগ ব্যাপক তোলপাড়ের সৃষ্টি মুলাদীতে দুই মাসের মধ্যে বয়াতী বাড়ীর রাস্তার ব্রীজের এপ্রোজ কালর্ভাট বিলিন

উজিরপুরে সংবাদ প্রকাশের জের সাংবাদিকের ওপর ইউপি চেয়ারম্যান পুত্রের হামলা রক্তাক্ত জখম

আপডেট: মে ৮, ২০২০

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

 

নিজস্ব প্রতিবেদক।। প্রকাশিত সংবাদে ক্ষিপ্ত হয়ে বরিশালের উজিরপুর উপজেলায় কর্মরত এক সংবাদকর্মীর ওপর বুধবার হারতা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হরেন রায়ের পুত্র সহযোগীদের নিয়ে হামলা চালিয়ে রক্তাক্ত জখম করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আহত সাংবাদিককে উজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার সাংবাদিক সফিকুল ইসলাম বাদি হয়ে ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৫ জনকে আসামি করে উজিরপুর মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।

দৈনিক একুশে সংবাদের উজিরপুর প্রতিনিধি সফিকুল ইসলাম এজাহারে উল্লেখ করেন হারতা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হরেন রায়ের বিরুদ্ধে গত ২২ এপ্রিল “হারতা ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাল আত্মসাতের অভিযোগ” শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। এতে চেয়ারম্যান ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে এবং হত্যাসহ ভয়ভীতি দেখিয়ে হুমকি দেয়। হুমকির ঘটনায় গত ৩০ এপ্রিল উজিরপুর মডেল থানায় চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে একটি সাধারন ডায়রী (জিডি) করা হয়।
সাংবাদিক সফিকুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, বুধবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে আমি হারতা বাজারের দক্ষিনপাড় গেলে হারতা ইউপি চেয়ারম্যানের পুত্র বরুন রায় (২২) ৩/৪ জন সন্ত্রাসীকে নিয়ে আমার পথরোধ করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। আমি এর প্রতিবাদ করলে চেয়ারম্যানের নির্দেশ সন্ত্রাসী পুত্র বরুন রায় ও সহযোগীরা লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালিয়ে আমাকে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে উজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে চেয়ারম্যান পুত্র বরুন রায় হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমি সফিকুল ইসলামকে কথা শোনার পাশের দোকানে নিয়ে যেতে চাইলে সে যেতে রাজি হয়নি। এ সময় তার হাত ধরে আমি টানাটানি করেছি। জখমের কোন ঘটনা ঘটেনি। উজিরপুর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মনোয়ারা খানম বলেন, এ ঘটনায় সফিকুল ইসলাম বাদি হয়ে হারতা ইউপি চেয়ারম্যান হরেন রায় ও তার পুত্র বরুন রায়ের নাম উল্লেখ্যসহ অজ্ঞাতনামা ৩/৪জনকে আসামি করে লিখিত অভিযোগ করেছে। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
Website Design and Developed By Engineer BD Network