৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২০ ইং, শনিবার

১৪ রানে ৭ উইকেটের পতন, অতঃপর হারল হায়দরাবাদ

আপডেট: অক্টোবর ২৫, ২০২০

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

অবিশ্বাস্য ঘটনা ঘটিয়ে ক্রিকেটপ্রেমীদের চমকে দিল কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব।অবিশ্বাস্যভাবে ম্যাচ জয় করে নিল তারা। মাত্র ১২৭ রানের টার্গেট দিয়ে সেই ম্যাচে হায়দরাবাদকে হারিয়ে দিল লোকশ রাহুলের দল। পাঞ্জাব বোলারদের তোপে ১৪ রানে ৭ উইকেট হারাল হায়দরাবাদ।

দুবাইয়ে টসে দিতে ব্যাটিংয়ে নেমেফের ব্যর্থ হয় কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের মারমুখী ব্যাটসম্যানরা।  ক্রিস গেইল, লোকেশ রাহুলদের নিয়ে গড়া বিগ হিটারের ব্যাটিং লাইনআপ নিয়ে মাত্র ১২৭ রানের টার্গেট দিতে পারে।

সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বোলারদের কাছে সেভাবে দাঁড়াতেই পারেনি পাঞ্জাবের ব্যাটসম্যানরা।

গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, নিকোলাস পুরানদের নিয়ে গড়া দল পুরো ২০ ওভার খেলে করতে পারল ৭ উইকেটে মোটে ১২৬ রান। অর্থাৎ জিততে হলে সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে করতে হবে ১২৭।

শনিবার রাতের ম্যাচে শুরুটা বেশ ভালোই করে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব। প্রথম ১০ ওভারে ১ উইকেটে ৬৬ রান তোলে তারা। এতোগুলো উইকেট হাতে রেখে বাকি ১০ ওভারে মারকুটে ইনিংস খেলে বড় সংগ্রহ দাড় করাবে পাঞ্জাব। এমন আশা করছিল সমর্থকরা। কিন্তু পরবর্তী কয়েক ওভারেই সমর্থকদের মাথায় হাত ওঠে নিশ্চিত। মাত্র ২২ রানের মধ্যে ৪টি উইকেট হারিয়ে ফেলে পাঞ্জাব।

অধিনায়ক রাহুল ২৭ বলে ২৭ রান করে রশিদ খানের ঘূর্ণিতে বোল্ড হন।গেইলও ২০ বলে ২০ রান করে জেসন হোল্ডারের বলে আউট হন।১৩ বলে ১২ রানের ছোট্ট ইনিংস খেলে সন্দ্বীপ শর্মার বলে আউট হন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। সন্দ্বীপ শর্মার দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন মান্দীপ সিং। আউটের আগে তিনি করেন ১৪ বলে ১৭ রান। দীপক হুদারাকে শুন্যরানে ফেরান আফগান স্পিনার রশিদ খান।

৮৮ রানের মধ্যে ৫ উইকেট হারায় পাঞ্জাব। একের পর এক উইকেট যেতে দেখেন নিকোলাস পুরান। পুরান ২৮ বলে শেষ পর্যন্ত ৩২ রানে অপরাজিত থাকলে নির্ধারিত ২০ ওভারে মাত্র ১২৬ রান করতে পারে পাঞ্জাব।

জবাবে ১২৭ রানের সহজ লক্ষ্য তাড়া করতে নেমেও ১২ রানে হেরে গেছে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ।

অথচ ৩ উইকেট হারিয়েই ১০০ রান করে ফেলেছিল হায়দরাবাদ। জয়টা শুধু সময়ের ব্যাপার মাত্র। হায়দরাবাদ শিবিরে রীতিমতো উল্লাসের ধ্বনি শুরু হয়ে গেছে। আর এমন পরিস্থিতিতে ম্যাচ হাতছাড়া হয়ে যায় ডেভিড ওয়ার্নারদের। এরপর ১৪ রান করতে গিয়ে ৭ উইকেট হারায় হায়দরাবাদ।

পাঞ্জাবের বোলারদের অবিশ্বাস্য বোলিং নৈপুণ্যে ১১৪ রানেই  অলআউট হয়ে হায়দরাবাদ।২০ বলে ৩৫ রানের ইনিংস খেলে রবি বিষ্ণোইয়ের বলে আউট হন ওপেনিংয়ে নামা ওয়ার্নারে ।  যা হায়দরাবাদের ইনিংসের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ইনিংস।

২০ বলে ১৯ রান করে অশ্বিনের বলে বোল্ড হন জনি বেয়ারস্টো। পরের ওভারে ৫ বলে ৭ রান করে মোহাম্মদ সামির বলে আউট হন আব্দুল সামাদ । ৯ ওভারের পর ৬৬ বলে হায়দরাবাদের দরকার মাত্র ৬০ রান। হাতে ৭ উইকেট।

মনিশ পান্ডে ও বিজয় শঙ্করের জুটি ৩৩ রান যোগ করে জয়ের বন্দরেই নিয়ে যাচ্ছিলেন।স্কোরবোর্ডে ১০০ রানের মাথায় ১৫ রানে আউট হন মনিশ পান্ডে। তখন ২৩ বলে প্রয়োজন ২৭ রান। ২৬ রান করে আর্শদ্বীপের বলে সাজঘরে ফেরেন বিজয়।

এরপরই যেন তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে হায়দরাবাদের ব্যাটসম্যানরা।  বিজয় আউট হওয়া পর আর মাত্র ৪ রান করতেই বাকি ৫ উইকেট পড়ে যায় হায়দরাবাদের। এক বল বাকি থাকতে ১১৪ রানে অলআউট হয়ে যায় হায়দরাবাদ। এ জয়ে প্লে-অফের আশা আরও জোরদার করল পাঞ্জাব। টানা চার ম্যাচে ৪ জয় নিয়ে পাঞ্জাবের পয়েন্ট ১০। তাদের অবস্থান ৫ নম্বরে। সমান ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে চার নম্বরে রয়েছে কলকাতা নাইট রাইডার্স।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
Website Design and Developed By Engineer BD Network