১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার

উথলী ইউপি নির্বাচন: নৌকা ও আনারস প্রতীকের প্রার্থীর পৃথক সংবাদ সম্মেলন

আপডেট: মার্চ ১২, ২০২৩

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

নৌকা ও আনারস প্রতীকের প্রার্থীর সংবাদ সম্মেলন 

চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার উথলী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবজালুর রহমান ধীরুর কর্মী-সমর্থক ও গুণ্ডাবাহিনী দ্বারা নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা, কর্মী-সমর্থকদের উপর অতর্কিত হামলা ও হুমকির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আব্দুল হান্নান। শনিবার (১১ই মার্চ) সন্ধ্যা ৭টার সময় জীবননগর প্রেস ক্লাবে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আব্দুল হান্নান বলেন, ‘আমি উথলী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী। প্রতীক বরাদ্দের পর থেকে শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচনী প্রচার করছিলাম। তবে বিদ্রোহী প্রার্থী ধীরু আমার কর্মী-সমর্থকদের বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছিল। বাইরে থেকে গুণ্ডা এনে আমার কর্মী-সমর্থকদের শায়েস্তা করতে চাচ্ছিলেন। গত শুক্রবার রাত পৌনে ৯টার দিকে নৌকার পক্ষে আমার কর্মী আমেজদ আলীর ছেলে রিপনসহ কয়েকজন প্রচার চালাচ্ছিল। এ সময় ধীরুর কর্মী আহাদ, হাবেল মণ্ডল, রায়হান ও পতনের নেতৃত্বে ২০-২৫ জন আমার কর্মীদের ওপর হামলা করে। এ সময় রিপনের আত্মীয় সোহানকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করা হয়। সোহান বর্তমানে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘শনিবার সকাল থেকে জামায়াত-বিএনপির কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে ধীরুর লোকজন আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে হুমকি দিচ্ছে। তাঁরা ভয় দেখিয়ে বলছে, নৌকার পক্ষে ভোট চাইলে সবার অবস্থা সোহানের মতো হবে। এমতাবস্থায় আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থকেরা আতঙ্কিত। তাই নির্বিঘ্নে ভোটের প্রচার চালাতে আমি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।’

এদিকে উথলী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আবজালুর রহমান ধীরুর কর্মী-সমর্থকদের উপর বহিরাগতদের হামলার প্রতিবাদ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবিতে একইদিন বেলা আড়াইটার সময় চুয়াডাঙ্গা প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আবজালুর রহমান ধীরু বলেন, ‘আগামী ১৬ই মার্চ উথলী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আনারস প্রতীকে ভোট চাওয়া ও প্রচার-প্রচারণা চালানোর সময় গত শুক্রবার রাত অনুমানিক সাড়ে ৯টার দিকে ১৫-১৬টি মোটরসাইকেলযোগে একদল বহিরাগত দুর্বৃত্ত রামদা ও হকিস্টিকসহ আমার বাড়ির সামনে মহড়া দেয়। আমাকে গালিগালাজ করাসহ আমার বাড়ির প্রাচীরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপ মারে এবং বহিরাগত দুর্বৃত্তরা, আমার সমর্থক উথলী গ্রামের আকাশ, সাহাঙ্গীরসহ ছয়জনকে মারধর করে গুরুতর আহত করে। ভোটের মাঠে গেলে খুঁন গুম করা হবে বলে দুর্বৃত্তরা হুমকি দেয়। আহতদের মধ্যে দুর্বৃত্তদের ধারালো অস্ত্রের কোপে আকাশের বাম হাতের ৩টি আঙুলের শির কেটে যায়। তাকে শুক্রবার রাতে চুয়াডাঙ্গায় সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় জীবননগর থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বরাবরও লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।’ এছাড়া তিনি শুক্রবারের ঘটনার জন্য দায়ীদের অবিলম্বে গ্রেফতার, অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ এবং বহিরাগতদের প্রবেশ ঠেকাতে চেকপোস্ট বসানোর দাবি জানান।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার (১০ই মার্চ) রাতে উথলী পশ্চিমপাড়া এলাকায় নৌকা ও আনারস প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ সৃষ্টি হয়। এতে উভয়পক্ষের দুইজন গুরুতরসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সংঘর্ষের পর এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছিল। আগামী ১৬ই মার্চ চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলার উথলী, মনোহরপুর, কেডিকে, বাঁকা, হাসাদাহ ও রায়পুর ইউনিয়ন পরিষদের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

প্রতিবেদক: এম.এ.আর.নয়ন।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
error: এই সাইটের নিউজ কপি বন্ধ !!
Website Design and Developed By Engineer BD Network